1. admin@sonalivor.com : admin :
  2. masudmaznun@gmail.com : admin2 :
শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ০৬:২১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
এসো আলোর সন্ধানে যুব সংগঠনের উদ্যোগে সুলতান শাহিদা ফাউন্ডেশন এর সহযোগিতায় পথশিশু, পথচারীদের মাঝে খাবার বিতরণ টঙ্গীতে পরিবেশ নদী বায়ু দূষণ ডেঙ্গু মশার উৎপাতে জনসচেতনতার দাবিতে মানববন্ধন একতরফা চুক্তির ফলে ভারতের প্রতি ক্ষোভ এবং কোটার কারণে নাগরিকদের মধ্যকার শ্রেণীবৈষম্য আরও প্রকট হবে : এবি পার্টি’ রাঙামাটিতে প্রবাসীর বউ ভাগিয়ে নেয়ার অভিযোগ ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে আত্রাইয়ে জয় বাংলা ঐক্য পরিষদের কমিটি গঠন; সভাপতি চঞ্চল, সম্পাদক সজল পটুয়াখালীর গলাচিপায় সুশীলদের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত সোনারগাঁওয়ে বেগম খালেদা জিয়ার রোগ মুক্তি ও দীর্ঘায়ু কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত বাগেরহাটে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতিতে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কর্মকর্তা-কর্মচারীরা মতিউরের বিরুদ্ধে পঞ্চম দফা অনুসন্ধানে নেমেছে দুদক হঠাৎ শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় রাতে হাসপাতালে ভর্তি বেগম খালেদা জিয়া

এনবিআর কর্মকর্তা মতিউর রহমান কোথায় আছে, তা কেউ জানে না

সোনালী ভোর ডেস্ক :
  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ২২ জুন, ২০২৪
  • ৭৮ বার পঠিত

গোলাম রসুল দিনার, গাজীপুর সদরমেট্রো থানা প্রতিনিধি : গণমাধ্যমে ১৫ লাখ টাকায় একটি কোরবানির ছাগল বিক্রির ঘটনায় নাম আসে ইফাত নামের এক তরুণের। ১৫ লাখ টাকা দাম হাঁকা হলেও ছাগলটি ১২ লাখ টাকায় কেনা ইফাত জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের কর্মকর্তা ড. মো. মতিউর রহমানের ছেলে। প্রশ্ন ওঠে একজন রাজস্ব কর্মকর্তার ছেলে কীভাবে এতো টাকা দিয়ে ছাগল কিনতে পারেন।

দেশজুড়ে যখন তাদের নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা চলছে, ঠিক সেই সময় তারা কোথায়, সে বিষয়ে নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না কেউই।

ঈদের দিন বাড়িতে ছিল রঙিন আলোর ঝলকানি। বাড়ির নিচে বাঁশের খুঁটিতে বাঁধা ছিল বেশ কয়েকটি গরু-ছাগল। কোরবানি হয়েছে সবগুলোই। কিন্তু এক ছাগলকাণ্ডে এখন সবই নিস্তব্ধ। বাসার মূল ফটক বন্ধ, খুলে রাখা হয়েছে নেমপ্লেটও।

একটি সূত্র জানায়, ছাগলকাণ্ডের পর ছেলেকে অস্বীকার করে এনবিআর কর্মকর্তা মতিউর বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়ে গা-ঢাকা দিয়েছেন। এদিকে মতিউর রহমানের দ্বিতীয় পক্ষের স্ত্রী শাম্মী আখতার শিভলী, ছেলে মুশফিকুর রহমান ইফাত ও ইরফান দেশত্যাগ করেছেন বলে দায়িত্বশীল একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে।

রাজধানীর ধানমন্ডির ৮ নম্বর রোডে ৪১/২ নম্বর ইম্পেরিয়াল সুলতানা ভবনের পাঁচতলায় গতকাল শুক্রবার গিয়ে জানা যায় ইফাতের পরিবার সেখানে নেই।

বাড়ির নিরাপত্তাকর্মী জানান, মঙ্গলবার বাড়ি থেকে বের হওয়ার পর আর ফিরে আসেননি। যে বাড়িতে ইফাতের জন্ম, সেই বাড়ি ছেড়ে তিনি কোথায় গেছেন তা জানা নেই।

বাড়ির সামনে সাংবাদিকরা অবস্থান করায় একপর্যায়ে ওপর থেকে মলমূত্র ছুড়ে মারা হয়। এই ভবনের পাঁচ তলার পুরো ফ্লোর মতিউর রহমানের দ্বিতীয় স্ত্রী শাম্মী আখতারের নামে কিনে দামি আসবাব দিয়ে সাজানো হয়েছে বলে জানা যায়।

একটি সূত্র জানায়, ইফাতের ছাগলকাণ্ড সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার পর ধানমন্ডির বাসা ছেড়ে কাকরাইলে নিজেদের আরেকটি ফ্ল্যাটে গিয়ে ওঠেন ইফাত, তার মা শাম্মী আখতার ও ছোট ভাই। গতকাল দুপুরে কাকরাইলের স্কাইভিউ মমতা সেন্টার নামে ওই ভবনে গিয়ে জানা যায়, ভবনের ৭/ডি নম্বর ফ্ল্যাটটি তাদের।

ফ্ল্যাটের নিরাপত্তাকর্মী রবিউল ইসলাম জানান, বুধবার গভীর রাত পর্যন্ত তারা এ বাসায় ছিলেন। এই ফ্ল্যাটে ইফাত, তার মা ও ছোট ভাই মাঝেমধ্যে থাকেন। সেখানে আসেন মতিউর রহমান।

বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় ৭/এ নম্বর রোডের ৩৮৪ নম্বর বাড়িতে ৫ কাঠা আয়তনের প্লটে তৈরি করা সাততলা ভবনের এক ফ্লোরে বাস করেন মতিউর রহমান ও তার প্রথম স্ত্রী লায়লা কানিজ লাকি। এই বাড়িতে মতিউর, তার স্ত্রী ও ছেলের ৫টি গাড়ি রাখা। কিন্তু গতকাল এই বাসায় মতিউর রহমানকে পাওয়া যায়নি। মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

Facebook Comments Box
এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২২ সোনালী ভোর
প্রযুক্তি সহায়তায় Shakil IT Park